Total Pageviews

New leadership

Contact us: chtpcjss@gmail.com

PCJSS/JSS key persons:
Sudha Sindhu Khisa, President/ Rupayan Dewan, Vice President,/Tatindra Lal Chakma, General Secretary/. Responsibility shouldered on 11 July 2013.

Background: The present central committee was elected on 11 July 2013, on the 2nd day of the 3-day long 10th PCJSS national conference. The earlier committee (convening committee) was formed on 10th April 2010 when Mr. Santu Larma convened the 9th national conference (29-31 March 2010) in sheer violation of the party constitution and excluded a few hundred veteran leaders and members and also "formally" expelled 7 top veteran leaders (Chandra Sekhar Chakma, Sudhasindhu Khisa, Rupayan Dewan, Tatindra Lal Chakma, Eng. Mrinal Kanti Tripura, Advocate Shaktiman Chakma and Binoy Krishna Khisa) and also declared their capital punishment. The present leadership is determined to democratise the JSS under a collective leadership.

"The world suffers a lot not because of the violence of the bad people, But because of the silence of the good people." Napoleon (1769-1821).

Friday, August 17, 2012

NSCN conflict update

Follow-up of CHT Voice report on NSCN conflict posted yesterday, update as on 17 Aug 2012, 8.30 P.M.: 

The latest report claims that the incident actually took place at Fulobichara, quiet north of Ojjyangchari, and the NSCN base commander was killed on the spot while two others seriously injured. The deserters then came down to Ojjyangchari NSCN base and then fled downwards. They were noticed at Eight Number, north of Massalong Bazar. Three NSCN groups immediately set out to round the deserters up and it has been gathered in the morning that the deserters were in tight situation to secure their flight to Mizoram or Tripura.The area is out of cell phone network, accessible only by country boat and walking. Being rainy season it is difficult to reach by both the modes.

Thursday, August 16, 2012

Myanmar conflict threatens regional stability


Asia Times, Aug 16, 2012
Web: http://www.atimes.com/atimes/Southeast_Asia/NH16Ae02.html
Myanmar conflict threatens regional stability
By Subir Bhaumik

AGARTALA and IMPHAL - As a rising number of Rohingya Muslims flee sectarian conflict in Myanmar and take sanctuary in India's northeastern states, the flow of refugees is putting a new strain on bilateral relations. New Delhi has called on Naypyidaw to stem the rising human tide, a diplomatic request that Indian officials say has so far gone unheeded.

Ongoing sporadic violence between Rohingya Muslims and Buddhist Rakhines in western Myanmar has left more than 80 dead and displaced tens of thousands. The Myanmar government's inability or unwillingness to stop the persecution of Rohingyas has provoked strong international reaction, raising calls for retribution in radical corners of the Islamic world, including a threat from the Pakistani Taliban to attack Myanmar's diplomatic missions abroad.

Fears are now rising that Myanmar-borne instability is spreading to India's northeastern frontier regions, threatening to spiral into a wider regional security dilemma. At the same time that Muslim Rohingyas and Buddhist Rakhines clashed in Myanmar, fighting erupted between Muslims and Hindus in India's northeastern Assam State. As in Myanmar, where the Rohingyas are considered illegal Bangladeshi settlers, the Muslims targeted in Assam are accused of being ethnic Bengalis who have migrated illegally from Bangladesh.

"Unless checked firmly, the Rohingya influx could become a big headache in northeast India. The Rohingyas have nowhere to go after Bangladesh foiled their attempts to cross over from Myanmar by land and sea," says Sabyasachi Basu Roy Choudhury, an expert in migration patterns on the India-Myanmar-Bangladesh frontier. "They are unwelcome in other countries of Southeast Asia like Thailand, so they will naturally turn towards India."

Before the explosion of violence in Myanmar, over the past two years more than 1,400 Rohingyas had been intercepted in three northeastern Indian states - Tripura, Mizoram and Manipur - while trying to enter illegally, according to reports sent by the state police forces to the Indian home ministry.

While almost half of them were caught while trying to enter Indian territory from Myanmar's Rakhine State, the rest were nabbed while trying to enter India from temporary shelters in Bangladesh's Chittagong region. The shelters, supported by the Office of the United Nations High Commissioner for Refugees (UNHCR), were first established in the late 1970s when Rohingyas started to flee persecution in Myanmar.

Bangladesh's former military ruler General Zia ur Rahman was at one point of accused by Myanmar, then known as Burma, of supporting Rohingya insurgents. The number of these shelters had diminished in recent years as many Rohingyas either returned to Myanmar with UNHCR support or melted permanently into Bangladesh or further afield into South Asia, Southeast Asia or the Middle East.

"Those trying to enter through [the northeast Indian state of] Tripura came from Bangladesh [which border Tripura], where the Rohingyas are under considerable pressure to go back to their native [Rakhine] province in Myanmar. But those trying to enter directly to India [from Myanmar] ended up in Mizoram and Manipur, which have direct borders with Myanmar," said a senior Indian federal intelligence official who requested anonymity.

He said that most of the Rohingyas arrested in Tripura had tried to flee Bangladesh after the country's Awami League government started pressuring them to return to Myanmar two years ago. But many of them have been captured in the past two months in Manipur and Mizoram, trying to escape persecution in Rakhine.

Basu Roy Choudhury said many Rohingyas are moving from their temporary shelters in Bangladesh's Chittagong region to settle down in the Chittagong Hill Tracts (CHT), where the Buddhist Chakma and Marma tribes resent Muslim settlements.

Militant history
Militants from these tribes fought a two-decade guerrilla war against the Bangladesh government (1976-1997), during which Bengali Muslim settlers were regularly attacked and killed in large numbers, provoking inevitable retaliation. In 1997, the Shanti Bahini (Peace Force) which ran the armed campaign for the Buddhist tribes in southeast Banglahdesh against government troops signed an accord with Dhaka.

Their fighters laid down arms and returned to normal life when Bangladesh promised to create an autonomous council to fulfill the tribal aspirations for self rule and also to stop Muslims from settling in the plains districts of the Chittagong Hill Tracts. But because those autonomy promises were never fully fulfilled, the Buddhist tribespeople there remain restive and any large-scale settlement of Muslims, Rohingyas or Bengalis, some fear could reignite the conflict.

"So the Rohingyas will obviously be unwelcome in Chittagong Hill Tracts and that could create fresh tensions," says Basu Roy Choudhury.

Islamist groups in Bangladesh are keen to undermine the demography of the Chittagong Hill Tracts by pushing more Muslims into the area, as this is the only region in Bangladesh with a non-Muslim majority. The Jamait-e-Islami, which joined the Bangladesh Nationalist Party (BNP)-led coalition that ruled the country between 2001 and 2006, continues to view such migration as favorable to bolstering its grass roots support base and "Islamizing" of the area.

Then, Jamait ministers encouraged Islamic non-governmental organizations supported by Saudi Arabia and Pakistan to help Muslim settlers with settlement funds to move into the Chittagong Hill Tracts. Other smaller Islamic groups continue to support Muslim settlements in the area. The local Buddhist tribespeople, meanwhile, either support their own groups or the present ruling Awami League and its more secular agenda.

"A recent conference of [Chittagong Hill Tracts] groups in Thailand's northern Chiang Mai city expressed apprehension about this trend," says Mrinal Chakma, a researcher with Calcutta's Maulana Azad Center for International Studies. "Islamist groups are backing the Rohingya settlements in the CHT, though the present government may not be encouraging it."

The Rohingyas are also largely unwelcome in India's northeastern region, where nativist groups angered by the illegal migration of settlers from Bangladesh periodically attack Muslim settlers. Most of the Rohingyas caught entering northeast India have told security officials during questioning that their destination was Assam, 35% of whose 25 million people are Muslims, mostly of Bengali origin.

"With a large Muslim population, Assam may be a natural attraction for the Rohingyas, because from there they can melt into other states of India," says Samir Das, who has researched the nativist movements in Assam.

Muslims of Bengali origin have been the target of recent violence by indigenous Bodo tribespeople in western Assam. More than 80 people have died in the riots that erupted in late July and more than 250,000 people, both Bodos and Muslims, have been displaced. The Assam government was forced to call out the army to control the situation and was given shoot-at-sight orders to quell the violence.

"So for those Rohingyas headed for Assam, it would be a frying pan-to-fire situation. It could further complicate the fragile ethnic balance of Assam and the rest of India's northeast, where there's considerable angst over alleged illegal migration from Bangladesh," said Samir Das.

India has asked its northeastern states and border guards to maintain a tight vigil on the country's borders with Bangladesh and Myanmar to prevent a further influx of Rohingyas. Officials say they are worried over the growing arc of violence after Muslims in its financial capital Mumbai and in the southern state of Andhra Pradesh attacked natives of northeastern states, easily identifiable by their Mongoloid features, at the weekend in retaliation against the violence against Muslims in Assam.

Police opened fire in Mumbai on Saturday to control the rioting, in which two died and more than 50 others were injured, including several police. During their protests against the violence against their co-religionists in Assam, the Indian Muslim groups in Mumbai and elsewhere have also protested against Rohingya persecution in Myanmar, even calling for suspension of diplomatic ties with Myanmar.

Subir Bhaumik, a known specialist on Northeast India and Bangladesh, is a former BBC correspondent.

(Copyright 2012 Asia Times Online (Holdings) Ltd. All rights reserved. Please contact us about sales, syndication and republishing.)

Armed clash within NSCN in CHT


Kassslong River is seen on the north direction stretching from (in the Google picture) Massalong Bazar and beyond Bhulongtuli Moan.

A highly placed source of the CHT Voice from Marishya of Baghaichari Upazila in Rangamati Hill District reports in the evening that there was an armed clash last night within NSCN at Ojjayangchari, on the headwaters of Kassalong river in Kassalong Reserved Forest in the northern part of Rangamati Hill District, bordering Tripura and Mizoram of India. 

The report claims that a small group of 8 NSCN rebels attacked on the commander of the outfit based at Ojjyangchari and fled away with 15 automatics. This fleeing group was seen in the morning at Eight Number, south of Massalong Bazar. It is believed that the deserters might have taken their move towards east to enter into Mizoram. The report claims that the commander was killed on the spot and large number of NSCN members have been engaged to catch the deserters.

Monday, August 13, 2012

নিজেরা পরবাসী হতেই কি তাদের আদিবাসী বলব


Visit: http://www.kalerkantho.com/?view=details&archiev=yes&arch_date=12-08-2012&type=gold&data=Football&pub_no=972&cat_id=2&menu_id=20&news_type_id=1&news_id=277233

Source: Kalerkantho, Dhaka, sub-editorial, page 16, 12 August 2012
 
মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর-প্রতীক 

গত তিন দিন একাধিকবার টেলিভিশনে টকশোতে যাওয়ার জন্য দাওয়াত এসেছিল, একটি দৈনিক পত্রিকা কর্তৃক আয়োজিত আলোচনায়ও থাকতে হয়েছিল। যে বিষয়গুলো উপস্থাপনের সুযোগ হয়েছে, অথবা আরো সুনির্দিষ্টভাবে বললে বলতে হয়, উপস্থাপন করার জন্য দাওয়াত দেওয়া হয়েছিল সেগুলো নিম্নরূপ-
প্রথমত, বাংলাদেশের জনসংখ্যার মধ্যে যারা নৃ-তাত্ত্বিক সংখ্যালঘু তাদের একটি দাবি নিয়ে যখন তারা আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি চায়- এর তাৎপর্য কী। দ্বিতীয়ত, ১৮ দলীয় জোটের এই মুহূর্তের প্রধান রাজনৈতিক দাবি যথা আগামী সংসদ নির্বাচনকালে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক বা অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের বন্দোবস্ত।

বাংলাদেশের জনসংখ্যা সাড়ে ১৫ কোটি থেকে ১৬ কোটির মাঝখানে। জাতিগতভাবে তথা ভাষাভিত্তিক জাতীয়তায় এবং নৃ-তাতাত্ত্বিক বিচারে ৯৮ শতাংশই হচ্ছে বাঙালি এবং মানবগোষ্ঠীর মধ্যে যাদের অ্যাংলো এশিয়ান বলা হয় তাদের অংশ। বাকি দুই শতাংশ হচ্ছে অনেক ভাষার অধিকারী, একাধিক বর্ণ ও ধর্মের অধিকারী এবং নৃ-তাতাত্ত্বিকভাবে মানবগোষ্ঠীর যাদের মঙ্গোলীয় বলা হয় তাদের অংশ। এই দ্বিতীয় অংশকে আমরা এত দিন উপজাতি বলে এসেছি। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত তিনটি পার্বত্য জেলার সম্মিলিত নাম পার্বত্য চট্টগ্রাম। সেখানে বসবাস করে ১২টি কিংবা মতভেদে ১৩টি উপজাতি। এর বাইরে অন্তত আরো ৩৩টি ছোট ছোট উপজাতি বাস করে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে, বাংলাদেশের উত্তর অংশে তথা উত্তরবঙ্গে এবং বৃহত্তর ময়মনসিংহ-সিলেট অঞ্চলে।

১৯৭২-এর সংবিধানে তাদের বাঙালি বলা হয়েছে। ব্রিটিশ আমল বা পাকিস্তান আমলে তাদের ওপর অন্যায় হয়েছে। বিশেষ করে যারা পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতি, তারা নিজেদের গুরুতরভাবে বঞ্চিত এবং নির্যাতিত মনে করে। এর ফলে ডিসেম্বর ১৯৭৫-এ পার্বত্য চট্টগ্রামের সশস্ত্র বিদ্রোহী উপজাতীয় সংগঠন যার নাম শান্তিবাহিনী, তারা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধ শুরু করে। দুঃখজনক হলেও বাস্তবতা হলো এই যে বাংলাদেশের সচেতন নাগরিক সমাজের একটি বড় অংশই জানে না, কী কারণে সেই সশস্ত্র যুদ্ধ শুরু হয়েছিল এবং সেই সংঘাত নিরসনে কী কী আর্থ-সামাজিক পদক্ষেপ কোন কোন আমলে নেওয়া হয়েছে। অধিকতর দুঃখজনক আরেকটি বিষয় হলো, এই যে বুদ্ধিজীবী সমাজের একটি অংশ বলে বেড়ায় এবং বিশ্বাস করে যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এই সমস্যার সৃষ্টি করেছে এবং শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আমলে পাহাড়ে বাঙালিদের বসতি করতে দেওয়ায় সমস্যা শুরু হয়েছে। সুযোগ এবং পরিবেশের অভাবে ওই বিষয়গুলো নিয়ে গভীর আলোচনা কম হয়। ফলে ভ্রান্ত ধারণাগুলো দূর হয় না। আজকের সংক্ষিপ্ত কলামে এ বিষয়ে বলব না, সম্পাদক মহোদয়ের অনুমতিক্রমে ধারাবাহিক পাঁচটি কলাম লিখব। আগামী সেপ্টেম্বর অক্টোবরে। সম্মানিত পাঠককুলের খেদমতে।

আজকে যার ওপর গুরুত্ব দেব সেটা হলো, উপজাতীয় জনগোষ্ঠীকে আদিবাসী হিসেবে সম্বোধন করা বা অভিহিত করা এবং এর তাৎপর্য। পাঁচ-সাত বছর ধরে মিডিয়ায় একটু একটু করে আদিবাসী শব্দের ব্যবহার বেড়েছে। এতে বেশি চিন্তিত হওয়ার কারণ নেই। উদ্বেগ আর মহাচিন্তা শুরু হলো তখনই, যখন উপজাতীয় নেতৃত্বের এক অংশ জোরালো তৎপরতা শুরু করল এই বলে যে উপজাতীয়দের সাংবিধানিকভাবে 'আদিবাসী' পরিচয়ের স্বীকৃতি দিতে হবে। অর্থাৎ সামাজিক পরিচয় থেকে উত্তরণ ঘটিয়ে রাজনৈতিক ও সাংবিধানিক পরিচয় নেওয়া। বর্তমানে শাসক রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে উপজাতি জনগোষ্ঠীকে আদিবাসী বলে ফেলেছে ৪৬ মাস আগে। আন্দোলনকারীদের জন্য এটা একটা অনুকূলীয় পয়েন্ট; কিন্তু আমি মনে করি, আওয়ামী লীগ তাৎপর্য না বুঝেই শব্দটি ব্যবহার করেছিল। প্রধানমন্ত্রী এক বা দুই বছর আগে ৯ আগস্ট দিবসটি পালন উপলক্ষে যেই বাণী দিয়েছিলেন সেখানেও তিনি আদিবাসী শব্দটি ব্যবহার করেছিলেন, যথাসম্ভব তাঁর সহায়তাকারীদের বোঝার অভাবের কারণে। প্রায় ১২ মাস ধরে বর্তমান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে আদিবাসী শব্দের ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। এতে আন্দোলনকারী উপজাতীয় নেতারা সাংঘাতিকভাবে নাখোশ ও বিরক্ত। তাহলে আমাদের জানা অবশ্যই প্রয়োজন কী কারণে শব্দটির ব্যবহারে নিরুৎসাহী করা হচ্ছে, যা সরকার আদিবাসী হিসেবে স্বীকৃতি দেবে না বলেছে।

জাতিসংঘের উদ্যোগে একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বহু বছর আগে, নাম ইন্টারন্যাশনাল লেবার অর্গানাইজেশন, যাকে সংক্ষেপে আইএলও বলা হয়। আইএলও অনেক বিষয় নিয়ে নাড়াচাড়া করে। ১৯৫৭ সালে আইএলও একটি কনভেনশন 'অ্যাডাপ্ট' করে। বিষয় ছিল পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা নৃ-তাতাত্ত্বিক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠী। এখানে বলতেই হবে যে কারা ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠী বা কারা সংখ্যালঘু এটা আপেক্ষিক ব্যাপার। কারণ রাজনৈতিক সীমারেখার কারণে একজন আরেকজনকে সংখ্যালঘু কিংবা সংখ্যাগুরু বলতেই পারে।

আইএলওর কনভেনশনটি অনেক কিছু নিয়ে বিস্তৃত ও নিবিড়ভাবে লিখেনি। পৃথিবীর অনেক দেশ এটিকে অনুস্বাক্ষর বা রেটিফাই করেছিল আবার অনেকে করেনি। স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২-এ বাংলাদেশ এটিকে রেটিফাই করে। ইতিমধ্যে ১৯৭৫-এর ডিসেম্বর থেকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত হয় পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তিবাহিনী, ১৯৫৭ সালের কনভেনশনটিকে পরিবর্ধন, পরিমার্জন এবং পরিশীলন করা, একই আইএলও ১৯৮৯ সালে আরেকটি কনভেনশন 'অ্যাডাপ্ট' করে। যার নম্বর হচ্ছে ১৬৯।

পৃথিবীর বহু দেশ ১৬৯ কনভেনশনটিকে অনুস্বাক্ষর করে আবার বহু দেশ করে না। বিশ্বের দেশে দেশে নৃ-তাতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর নেতারা তৎপর হয়ে ওঠেন। তাঁদের উদ্যোগে জাতিসংঘের মধ্যে অন্য সংস্থাগুলোও সক্রিয় হয়ে ওঠে। শুধু নৃ-তাতাত্ত্বিক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীদের প্রসঙ্গে জাতিসংঘ একটি ফোরামও গঠন করে। তাদের সবার সম্মিলিত উদ্যোগে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ২০০৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে একটি ঘোষণা 'অ্যাডাপ্ট' করে। বেশির ভাগ দেশ পক্ষে ভোট দেয়, অল্প কিছু দেশ বিরুদ্ধে ভোট দেয় এবং কয়েকটি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে। বাংলাদেশ ভোটদানে বিরত ছিল। এই প্রেক্ষাপটেই চার-পাঁচ বছর ধরে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র নৃ-তাতাত্ত্বিক জনগোষ্ঠীর কিছু নেতা, নিজেদের আদিবাসী হিসেবে সরকারের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য সচেষ্ট হন।

মুখে মুখে কাউকে আদিবাসী হিসেবে অভিহিত করা আপাতত কোনো বড় ঝামেলার বিষয় নয়; কিন্তু দীর্ঘকাল অভ্যাসের কারণে এটি অধিকারে পরিণত হয়। এটিই ভয়ের কারণ। অন্যদিকে পার্লামেন্টে আইনের মাধ্যমে স্বীকৃতি দেওয়া বিপজ্জনক বলে মনে করি। কারণ অতি সংক্ষেপে বলছি। জাতিসংঘের সাধারণ সভার ২০০৭ সালের ঘোষণা মোতাবেক যারা আনুষ্ঠানিকভাবে আদিবাসী, তাদের কয়েকটি সুনির্দিষ্ট অধিকার থাকবে এবং রাষ্ট্রের কাছ থেকে তারা কিছু বিষয়ে সুনির্দিষ্ট সুযোগ-সুবিধার নিশ্চয়তা পাবে। প্রথম উদাহরণ : আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে আইনগতভাবেই আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার দিতে হবে। আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার মানে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের পরিভাষায়, রাইট অব শেলফ ডিটারমিনেশন। যেই অধিকার কাশ্মীরকে ভারত দিচ্ছে না ৬৪ বছর ধরে, উত্তর-পূর্ব ভারতের নাগরিকদের ভারত দিচ্ছে না ৫৮ বছর ধরে, দক্ষিণ ফিলিপাইনে অবস্থিত মিন্দানাও এলাকার মুসলমানদের দিচ্ছে না ফিলিপাইনের খ্রিস্টান সরকার, যে অধিকার ইন্দোনেশিয়া সরকার দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল পূর্ব তিমুরের খ্রিস্টান সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীকে; ১৯৯৮ সাল থেকে নিয়ে পেছনের দিকে ২০ বছর ধরে। বাংলাদেশ কি পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতি জনগোষ্ঠীকে আনুষ্ঠানিকভাবে এই প্রশ্নের উত্তর দিতে সুযোগ দেবে, 'যথা আপনারা পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় জনগণ সর্বজনীন ভোটের মাধ্যমে তথা রেফারেন্ডামের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নিন এই মর্মে যে আপনারা বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্ত থাকবেন কি থাকবেন না?' এই প্রশ্ন এবং এই উত্তরের তাৎপর্য হৃদয়ঙ্গম করার দায়িত্ব সম্মানিত পাঠককুলের। দ্বিতীয় উদাহরণ : আনুষ্ঠানিক আদিবাসীদের ভূমির ওপর সব ধরনের প্রাকৃতিক সম্পদ যথা বনজঙ্গল এবং ভূমির নিচের প্রাকৃতিক সম্পদ যথা গ্যাস তেল, কয়লা ইত্যাদির একমাত্র এবং একচ্ছত্র মালিক হলো আনুষ্ঠানিক আদিবাসী জনগোষ্ঠী।

অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ২০০৭ সালের জাতিসংঘ ঘোষণা মোতাবেক বাংলাদেশ সরকার যদি আমাদের নৃ-তাতাত্ত্বিক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীগুলোকে আদিবাসী হিসেবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়, তাহলে ওই স্বীকৃতির বদৌলতেই আদিবাসীরা যে সুযোগ-সুবিধা পাবে, সেটা যদি বাংলাদেশ সরকার দিতে অপারগ হয় অথবা গড়িমসি করে তাহলে আদিবাসীরা এর প্রতিকারস্বরূপ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকে কারিগরি ও আর্থিক সাহায্য সরাসরি চাইতে পারবে। বিবেচ্য বিষয় রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা কোনো ক্রমেই অটুট থাকবে?

বিষয়টি এত স্পর্শকাতর ও গভীর বিশ্লেষণের দাবিদার যে এই ক্ষুদ্র কলামের মাধ্যমে সুবিচার করা সম্ভব নয়। আগ্রহী পাঠককুল নিজে কষ্ট করে ইন্টারনেট থেকেও কিছু জানতে পারবেন।

লেখক : চেয়ারম্যান বাংলাদেশ কল্যাণপার্টি এবং নিরাপত্তাবিষয়ক বিশ্লেষক।

Assam on alert following Ulfa threat

Daily Star, Dhaka, Monday, August 13, 2012, International
http://www.thedailystar.net/newDesign/news-details.php?nid=245986

PTI, Guwahati

Security has been beefed up and alert sounded throughout Assam following reports of possible strikes by Ulfa's anti-talk faction in the run-up to Independence Day celebrations on Wednesday.

According to intelligence reports, several groups of the outfit's anti-talk faction have sneaked into different parts of the start to carry out subversive activities and patrolling has been intensified to nab them, official sources said.

Security forces have carried out operations in different parts of the state and nabbed several militants who were planning to disrupt the Independence Day celebrations, the sources said.

The anti-talk faction of the ULFA has called an Assam Bandh on August 15 and also joined several other militant outfits of the North East in calling a boycott and general strike on that day.

Saturday, August 11, 2012

এইসব পাকিস্তানী বুদ্ধি কে দেয়?

Source: Janakantha, Chaturanga, Dhaka, August 11, 012

মুনতাসীর মামুন

১৬১০ সালে খুব ঘটা করে সম্রাট জাহাঙ্গীরের সুবেদার ইসলাম খাঁ ঢাকায় পদার্পণ করলেন। ঘোষণা করলেন, এখন থেকে ঢাকা হবে বাংলার মুঘল রাজধানী। এবং এ নগরের নাম হবে জাহাঙ্গীরনগর। মুঘল আমল তো কাগজে কলমে অষ্টাদশ [উনিশও] শতক পর্যন্ত ছিল। জাহাঙ্গীরনগর নামটি কেউ উচ্চারণও করেনি। খালি দরবারি ঘোষণার বা দলিলপত্রে নামটি ছিল। শাখারি বাজারের নাম ১৯৭১ সালে রাখা হয়েছিল টিক্কা খান রোড। ঐ মরণপণ সময়েও বাঙালী ঐ নাম উচ্চারণ করেনি। ‘আদিবাসী’ বিতর্কে হঠাৎ এ ঘটনাগুলো মনে পড়ল। বাঙালী জাতিগোষ্ঠী থেকে যারা আলাদা তাদের যে নামেই ডাকুন, তারা স্বতন্ত্র সত্তা। বাঙালী নয়। এবং তাদের বাঙালী করার দরকার নেই। যেমন, বাঙালীদের জাতিসত্তা বদল কি বাঙালী বা সরকার পছন্দ করবে? নামে কিছুই আসে যায় না।

বাঙালীদের থেকে যারা আলাদা বা আলাদা জাতিসত্তা তাদের সরকারী নাম ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা ইত্যাদি। বাঙালীদেরও বলা যেতে পারে বৃহৎ নৃ-গোষ্ঠী, বৃহৎ জাতিসত্তা ইত্যাদি। তাতে কি বাঙালীদের চরিত্র বদল হবে?

নিশ্চয় আওয়ামী লীগের কাছের কেউ যাদের পা-িত্য আওয়ামী লীগে শুধু স্বীকৃত, তারা ঠিক করেছে, বাঙালীরাই আদিবাসী। ‘আদিবাসীরা’ নয়। আক্ষরিত অনুবাদ এ ক্ষেত্রে অচল, এটি তাদের বোধের মধ্যে আসেনি। বাঙালীরাই আদিবাসী? কিন্তু বাঙালী তো শঙ্কর জাতি। এ ভূখ-ে যারা আগে ছিল তারা কি খাঁটি বাঙালী ছিলÑ এ প্রশ্নটি কিন্তু থেকে যায়। যাক, সে তর্কে যাব না। এই যে বদল এর পেছনে এক ধরনের মতলববাজি তো আছেই, এটা বোঝার জন্য পা-িত্যের দরকার হয় না। সাংবিধানিক সংশোধনের পর সরকারী মন্ত্রী ও আমলারা নিষ্ঠার সঙ্গে বলছেন বাংলাদেশে আদিবাসী নেই। এ কথা যারা শোনে, তারাই হাসে। বৃহৎ জনগোষ্ঠীর বাইরে এরা স্বতন্ত্র সত্তা। কমবেশি সব দেশেই স্বতন্ত্র জাতি গোষ্ঠী আছে। শাহরিয়ার কবির ভুল লেখেননি যে, “জাতিগত পরিচয়ের বাইরে এরাও কোথাও আদিবাসী, গিরিজন, বনবাসী, কোথাও জনজাতি, কোথাও ট্রাইবাল, কোথাও এ্যাবরিজিনাল, কোথাও ইনডিজিনাস, কোথাও এথনিক মাইনরিটি বা সংখ্যালঘু জাতিসত্তা বা সংখ্যালঘু নৃ-গোষ্ঠী, কোথাও ন্যাশনাল মাইনরিটি বা সংখ্যালঘু জাতিসত্তা।” [জনকণ্ঠ ৯.৮.১২] সরল বাংলায় আমরা এদেরই আদিবাসী বলে আখ্যা দিয়েছি এবং আদিবাসী বললে এমন কী উপজাতি বললেও এই স্বতন্ত্র জাতিসত্তার চেহারাই ভেসে ওঠে।

এতদিন শব্দ নিয়ে বিতর্ক চলছে। আদিবাসী নেই একথা বলা হয়েছে। আদিবাসী বা ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সংখ্যা বেঁধে দিয়েছে জাতিসংঘ যার চারটি উপাদান আছে। সে সংজ্ঞায় বাংলাদেশে আদিবাসী আছে। সুতরাং নেই বললেই হয় না। বাংলাদেশে এর সংখ্যা ৪৫টি এবং জনসংখ্যা প্রায় বিশ লাখ। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ১৯৯৪ সালে ঘোষণা করেছে প্রতিবছর ৯ আগস্ট ‘বিশ্বের আদিবাসীদের আন্তর্জাতিক দিবস’। গত বছরও বাংলাদেশে তা পালিত হয়েছে। সরকারও পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে। এ বছর ঘোষণা করা হলো, আদিবাসী দিবস পালন করা যাবে না। কারণ বাংলাদেশে তো আদিবাসীই নেই। বিতর্কের শুরু সেখান থেকেই।

পত্র-পত্রিকায় পড়েছি এবং বিভিন্ন জনের কাছে শুনেছি এ পরার্মশ নাকি আমাদের সেই বিখ্যাত ডিজিএফআইয়ের, যা পাকিস্তনের আইএসআইয়ের মতো কুখ্যাতি অর্জন করছে। মূল মাজেজাটা হলো অর্থাৎ তাদের চিন্তাধারা যাকে পাকিচিন্তাও বলতে পারি তা’হলো, যদি পৃথক সত্তা হিসেবে এদের স্বীকার করা হয় তা’হলে জাতিসংঘ প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা দিতে হবে আদিবাসীদের। এদের বাড় বাড়বে এবং একসময় স্বায়ত্তশাসন চাইবে। চাই কি স্বাধীনতাও চাইতে পারে। শোনা যায়, ডেপুটি প্রাইম মিনিস্টার হওয়ার আকাক্সক্ষী [ এ পদ প্রধানমন্ত্রী যে সৃষ্টি করবেন না কে না জানে] কিছু মন্ত্রীও সর্বতোভাবে মিলিটারি বুদ্ধি সাপোর্ট করেছেন। এ সব বুুদ্ধি পাকিস্তানী বুদ্ধি। সেনাবাহিনীর মাইন্ড সেট পাকিস্তানী। কিছু নেতা/ মন্ত্রীরও তাই। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধটা হলো কেন? একটু পটভূমিটা স্মরণ করুন। পাকিস্তানী বুদ্ধির কারণেই তো যাকে বলা যায় কুবুদ্ধি বা দুর্বুদ্ধি।

পাকিস্তানীমনা জেনারেল জিয়া সৈন্যবাহিনী দিয়ে, সেটলার দিয়ে পাকিদের মতো দমন করতে চেয়েছিলেন পাহাড়। বাংলাদেশে বৃহৎ সেনাবাহিনী রাখার অজুহাতও ছিল তা। কোন লাভ হয়নি। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় গিয়ে সেই পাকি ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে চাইলেন। শান্তিচুক্তি করলেন। এই প্রথম বিশ্বে শেখ হাসিনার একটি ইতিবাচক ভাবমূর্তি গড়ে উঠেছিল। ৬৩টি দেশসহ জাতিসংঘ অভিনন্দন জানিয়েছিল। পাহাড়ে অনুৎপাদনশীল খাতে খরচ কমে গিয়েছিল। পাহাড়ের বন উজাড় করে আমলাদের বাড়িঘরে কাঠ ব্যবহার ও বিক্রি হ্রাস পেয়েছিল। শান্তি ফিরে এসেছিল। উৎপাদন বেড়েছিল যা দেশজ উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে। স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর তা পছন্দ হয়নি। তখন থেকে নানা অজুহাতে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন বন্ধ রাখা হয়েছে, বিতর্ক তৈরি করা হয়েছে। এবং সরকার তাতে পা দিচ্ছে। আশ্চর্যের বিষয় যে, প্রথম আমলে শেখ হাসিনা যে স্বাধীনতা স্বাতন্ত্র্যবোধ দেখিয়েছিলেন এখন কেন যেন তাতে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছেন। এর কারণ হিসেবে যা বলা হয় তা আর লিখলাম না। তিনি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট করেছেন যেখানে লুপ্তপ্রায় ভাষাসমূহ [আদিবাসীদের] সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়া হবে। সেই শেখ হাসিনার সরকার কীভাবে নির্দেশ দেয় আদিবাসী দিবস পালন করা যাবে না?

সরকারের এই সিদ্ধান্ত একটি কুসিদ্ধান্ত, নিন্দা করার মতো সিদ্ধান্ত। নিশ্চয় বিরোধীদের। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আদিবাসীদের জন্য কাজ করে যে অর্ঘ্য পেয়েছিলেন তা ছুড়ে ফেলে দিতে চাচ্ছেন কেন? এই আমলে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে ইতিবাচক কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। বিএনপির ধারাই অনুসরণ করা হয়েছে। তার ওপর এই ধরনের ঘোষণা। বিশ লক্ষ মানুষ বা ভোটারকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে কার লাভ হলো? দেশের মানুষদের একটি বড় অংশও ক্ষুব্ধ একমাত্র বিএনপি ছাড়া, জামায়াত ছাড়া, কারণ তারা খুশি। তারা যা চাচ্ছে, সরকার তা করছে। মাননীয় আইনমন্ত্রী যেমন আমাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বলছেন, যুদ্ধাপরাধ বিচারে যে অবকাঠামো [ ১৩ জন কর্মচারী, দুটি ট্রাইব্যুনালে ] তা মাত্রাতিরিক্ত। মন্ত্রীর যুক্তি তো নিশ্চয় সবার থেকে উপরে, না হলে তিনি মন্ত্রী কেন। মাননীয় মন্ত্রী। প্রতিমন্ত্রী সচিবের জনবলের চেয়ে বেশি। বিচারের যে প্রক্রিয়া চলছে তা তো দেখছেনই। জামায়াতীরা খুব খুশি। এখন আরো খুশি পাহাড়ি/আদিবাসীদের ক্ষেত্রেও সরকার তাদের নীতিই অনুসরণ করছে। আর সরকারী দলই তো বলে বিএনপি-জামায়াতীরা পাকিদের অনুসারী।

গোয়েন্দারা আরেকটি পরামর্শ নাকি দিয়েছে যা সরকারই পালন করছে তা হলো, জাতীয় শোক দিবস সুতরাং এ সময় আদিবাসী দিবস পালন করা ঠিক নয়। খুশির খবর ৪০ বছর পর সেনাবাহিনীর শোক উথলে উঠছে জাতির পিতার প্রতি। তারা বুঝে গেছে যে, প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে হলে তার মন নিয়ন্ত্রণ করতে হলে কী বলতে হবে। এ ধরনের পরামর্শ সেনারা প্রায়ই দিয়ে থাকে। আমার সাংবাদিক বন্ধু শফিকুর রহমান একটি লেখায় চমৎকার এক মন্তব্য করেছিলেন, তা হলো, আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খান, জিয়াউর রহমান, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, মইনউদ্দিন আহমদ আমাদের কিছু জিনিস শিখিয়েছেন তা হলো সুশাসন মানে, চুল ছোট করতে হবে, গাছের গোড়ায় রং করতে হবে। দালান কোঠায় রং করতে হবে আর রাজনীতিবিদ পেলেই বদমাশ বলে জেলে ঢোকাতে হবে, সিভিলিয়ান সবাইকে দুর্নীতিবাজ বলতে হবে আর নিজেদের পদপদবী বেতন-ভাতা, ডিওএইচএসের সীমানা বাড়াতে হবে। এতবড় একটা জাতিকে চুল কাটানোর একটা পারিশ্রমিক আছে না! দুর্ব্যবহারের একটা মূল্য আছে না। তাদের এই পরামর্শটা সেরকম। জাতির পিতাকে তো সিভিলিয়ানরা খুন করেনি। খুনীদের তোয়াজও সিভিলিয়ানরা করেনি। আমরা যেন জানি না এটি শোকের মাস বা ১৫ আগস্ট শোক দিবস। লোক দেখানো শোক দিবস পালন জাতির পিতার অবমাননাই। এ ধরনের পরামর্শ ঐ ক্যাটাগরিতেই পড়ে। শোকের মাসের অর্থ এই নয় যে, এ মাসে জনজীবন বা আমাদের জীবন স্থবির হয়ে যাবে। বা স্থবির থাকতে হবে। যারা এসব লোক দেখানোর বুদ্ধি দিচ্ছেন তারা কি তাদের পিতামাতার মৃত্যুতে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর চেয়ে কম শোকাহত হয়েছিলেন? নাকি পিতামাতার মৃত্যুর পর বিয়েশাদী করেননি। চাকরি বাকরি করেননি? শেখ হাসিনার চেয়ে দুঃখী মানুষ তো বাংলাদেশে কেউ নেই। সেই দুঃখী মানুষটির কি জীবন একেবারে স্থবির হয়ে গিয়েছিল নাকি তিনি শোককে শক্তিতে রূপান্তরিত করেছিলেন?

১৫ আগস্ট কি খালেদা জিয়া জন্ম দিবস পালন করবেন না? ডিজিএফআই পারবে নাকি তা বন্ধ করতে? আজ ৯ আগস্ট জ্বালানি দিবস পালিত হচ্ছে সরকারীভাবে, কেনো? জন্মাষ্টমীর মিছিল বেরুবে আজ। সামনে ঈদ। পারবে মহাপরাক্রমশালী ডিজিএফআই ও মহাপরাক্রমশালী মন্ত্রীরা তা বন্ধ রাখতে। দেখি পারে কিনা এই বীর পুঙ্গবরা?

সমস্যা হচ্ছে আমরা যা না তা ভাবি নিজেদের সম্পর্কে। এটি হচ্ছে পাকিস্তানী মাইন্ড সেট। মুঠোফোনের মতো ক্ষুদ্র একটি দেশ গরিব জনসংখ্যার ভারে যে দেশ ডুবু ডুবু সে দেশ যদি ভাবে তারা পৃথিবীর পরাক্রমশালী কেউ তা’হলে তো মুশকিল। তাদের ইচ্ছেমতো তারা স্বীকৃত বিষয় বদলাতে পারে তা’হলে তো ঐ সব কুশীলব থেকে দূরে থাকা শ্রেয়। জাতিসংঘ থেকে এত সুবিধা নিয়ে জাতিসংঘের দিবস না পালন খুব সুবুদ্ধির নয়। এত শক্তিশালী হলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ড. ইউনূসের ব্যাপারে এত ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করতে হয় কেন? খুব বেশি জাত্যাভিমান ভাল নয়। জাত্যাভিমান ফ্যাসিবাদ নাজীবাদের জন্ম দেয়। ২০ লক্ষ মানুষ তাদের মতো থাকতে চাইলে সেই স্পেস দেয়াটাই সভ্যতা সংস্কৃতি। না দেয়াটা অভব্যতা অসংস্কৃতি।

২০ লক্ষ লোক যদি আদিবাসী হিসেবে পরিচিত হতে চায় তাতে কী এমন অসুবিধা? কেন এমন গাত্রদাহ? ২০ লক্ষ মানুষ [তখন বোধহয় আরো কম] তো কয়েক শ’ বছর আপন মনে বসবাস করছেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধেও ছিলেন, আওয়ামী লীগকেই ভোট দিয়েছেন। তাদের খানিকটা সুবিধা দিলে কি বাঙালীর ভাঁড়ারে টান পড়বে? এগুলো কী ধরনের মনোভাব? পাকিস্তান এসব করে আজ ছিন্নবিছিন্ন হয়ে যাচ্ছে।

৯ আগস্ট আদিবাসী দিবস পালিত হলো ভবিষ্যতেও হবে, কেউ কিছুই করতে পারবে না। সবাই সরকারী চাকর না। যে সরকার যা বলবে তাই বেদবাক্য হিসেবে মেনে নিতে হবে। স্পীকার তো বলেছিলেন, সাংসদ নয়, সংসদ সদস্য বলতে হবে। আমরা বা মিডিয়া তো তা বলছি না। স্পীকার কী করতে পেরেছেন? আদিবাসীর সংজ্ঞা দেয়া ছাড়া দেশে আরও অনেক গুরুতর সমস্যা আছে সরকারী নীতি নির্ধারকদের কি তা অজানা? যাদের আমরা শিক্ষিত বলে জানি, জনসংলগ্ন বলে শ্রদ্ধা করি তারাও কি মন্ত্রী মর্যাদা পেলে অশিক্ষিত হয়ে যান, জন-সংলগ্নতা হারান? আজ সরকার এ কাজটি না করে বরং যদি এতে পৃষ্ঠপোষকতা করত তা’হলে নিজের মান বাড়ত, ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হতো দলের ভোট বাক্স সমৃদ্ধ হতো। সে সুযোগ গেল। বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস বাংলাদেশ পালন করতে পারে আর আদিবাসী দিবস পালন করতে পারে না। প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতার একটি কথা খুব ভাল লাগল। ৮ আগস্ট তিনি বলছিলেন, সঙ্কটময় সময়ে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা কখনও সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি।

গত এক বছরে তাদের কার্যকলাপ দেখে মনে হচ্ছে তাঁর বক্তব্যটি কত সঠিক। গত এক বছরে অকারণে সরকার কিছু সিদ্ধান্ত নিচ্ছে যা তাদের পক্ষে যাচ্ছে না। কেন নিচ্ছে তাও জানি না। গোয়েন্দানির্ভরতা অতীতে সব সরকারের পতন ডেকে এনেছে।বিশেষ করে গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর মাইন্ডসেট যখন পাকিস্তানী। দুঃখের বিষয়, আওয়ামী লীগ নেতারা এত ইতিহাসের কথা বলেন, ইতিহাস থেকে কেন শিক্ষা নেন না?

আদিবাসী দিবস বিতর্ক : কী ছিল সেই পরিপত্রে!


Source: Kalerkantho, Dhaka, 11 August, 2012


 রাঙামাটি প্রতিনিধি

গত আগস্ট পালিত হলো আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। কিন্তু দিবস সামনে রেখে সরকারি একটি পরিপত্র নিয়ে তৈরি হয়েছিল ধুম্রজাল। কিন্তু বাস্তবে দেশের কোথাও দিবসের কোনো কর্মসূচিতে সরকারি পর্যায় থেকে বাধার ঘটনা ঘটেনি। কী ছিল সরকারি সেই পরিপত্রে, সচেতন মহলে নিয়ে তৈরি হয়েছে আগ্রহ।

একটি সূত্র থেকে পরিপত্রটি সংগ্রহ করে দেখা গেছে, ওই পরিপত্রের কোথাও আদিবাসী দিবসের কর্মসূচিতে বাধা দেওয়ার কোনো কথা লেখা নেই। ২০১২ সালের ১১ মার্চ জেলা প্রশাসকদের কাছে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব ডা. মো. সারোয়ার বারী স্বাক্ষরিত একটি চিঠি পাঠানো হয়, যাতে (স্মারক নং-স্বম(রাজ-)/গোপ্র/-বিবিধ/-/২০১১-৮৮১) নিজ জেলার উপজেলা পরিষদগুলোর কাছে নির্দেশনা দেওয়ার কথা বলা হয়। চিঠিটির সূত্র হিসেবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গোয়েন্দা শাখার কথা বলা হয়েছিল। চিঠির সূত্রেই জেলা প্রশাসন সংশ্লিষ্ট চিঠিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের কাছে পাঠায়।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠি : স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক অধিশাখা- এর উপসচিব . শাহিদা আকতার স্বাক্ষরিত চিঠিটিতে একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রতিবেদনের উদ্ধৃতাংশ পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব, আইজিপি ডিএমপি কমিশনারের কাছে পাঠানো হয়। ২০১১ সালে আদিবাসী দিবস শেষ হওয়ার মাত্র দুদিন পর এই চিঠিটি পাঠানো হয় ওই বছরের ১১ আগস্ট।

কী ছিল সেই নির্দেশনায়: আদিবাসী দিবস পালনের ব্যাপারে সেই চিঠি বা নির্দেশনার শুরুতেই বলা হয়- '১৯৯৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে আগস্ট বিশ্ব আদিবাসী দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সম্প্রতি বাংলাদেশেও ওই দিবসটি পালনের চর্চা শুরু হয়েছে। আদিবাসী দিবসে মেলা, সংগীতানুষ্ঠান, সেমিনার, শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।' ২০১০ সালের এপ্রিলে 'নৃ-তাত্তি্বক জনগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান বিল-২০০৯' জাতীয় সংসদে পাস হওয়ার তথ্য জানিয়ে আরো বলা হয়, '২৬ জুলাই ২০১১ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি তিন পার্বত্য জেলার উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধি কূটনীতিক, ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন দেশের হাই কমিশনার রাষ্ট্রদূতদের বিষয়ে ব্রিফিং করেন। ওই ব্রিফিংয়ে তিনি তিন পার্বত্য জেলার উপজাতীয়রা যে আদিবাসী নয়, তা সংশ্লিষ্টদের অবহিত করেন।'

চিঠির কোথাও আদিবাসী দিবসের অনুষ্ঠান বন্ধ করা বা করতে না দেওয়ার কথা বলা না হলেও নিয়ে নানা ধরনের কথাবার্তার জন্ম দেওয়া হয়। কিন্তু বাস্তবে আদিবাসী দিবস পালনে কোথাও বাধা দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে_এমন তথ্য পাওয়া যায়নি

রাষ্ট্রকে সবার অধিকার সমুন্নত রাখতে হবে, আদিবাসীদের অনুষ্ঠানে পুলিশের বাধা

Source: Prothom Alo, Dhaka, Editorial
http://www.prothom-alo.com/detail/date/2012-08-11/news/280932

রাষ্ট্রকে সবার অধিকার সমুন্নত রাখতে হবে
আদিবাসীদের অনুষ্ঠানে পুলিশের বাধা |
তারিখ: ১১-০৮-২০১২

 স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকুর কথা মানেনি তাঁর পুলিশ বাহিনী। আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস সামনে রেখে গত বুধবার তিনি বলেছিলেন, আদিবাসীদের কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হবে না। তারা শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করতে পারবে। ঢাকাসহ দেশের অধিকাংশ এলাকায় আদিবাসীরা সেই কর্মসূচি পালন করলেও কয়েকটি স্থানে বাধার সম্মুখীন হয়েছে। পুলিশ জয়পুরহাটে আদিবাসীদের শোভাযাত্রা পণ্ড করে দিয়েছে, খাগড়াছড়িতে শোভাযাত্রায় তারা বাধা দিয়েছে, একই জেলার পানছড়ি ও মহালছড়িতে যানবাহন আটকে দিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের এই আচরণ অত্যন্ত নিন্দনীয়। তাঁদের দায়িত্ব নাগরিকদের জানমাল রক্ষা করা, কারও শোভাযাত্রা ভেঙে দেওয়া বা গাড়ি আটকে দেওয়া নয়।

এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা হলেও উপেক্ষণীয় নয়। ১৯৯৫ সালের পর থেকে শান্তিপূর্ণভাবেই দিবসটি পালিত হয়ে আসছিল। নেতা-নেত্রীরা বাণী দিয়ে দিবসের শুভকামনা করেছেন। কোনো অসুবিধা হয়নি। হঠাৎ সরকারের পক্ষ থেকে ‘বাংলাদেশে কোনো আদিবাসী নেই’ ঘোষণা দেওয়ার পরই পরিস্থিতি বদলে যায়। একটি জনগোষ্ঠী কী পরিচয়ে নিজেকে পরিচিত করবে, তা রাষ্ট্র বা সরকার ঠিক করে দিতে পারে না। এই সরকারের একাধিক মন্ত্রী আছেন, ক্ষমতাসীন দলে বেশ কয়েকজন সাংসদ আছেন যাঁরা নিজেদের আদিবাসী হিসেবে পরিচয় দিতে আগ্রহী। তার পরও দেশে আদিবাসী নেই বলা স্ববিরোধী নয় কি? যে বাঙালি জনগোষ্ঠী পাকিস্তানি শাসকদের বিরুদ্ধে লড়াই করে জাতিসত্তার অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে, সেই বাঙালি জনগোষ্ঠী কেন অন্যের জাতিসত্তার স্বীকৃতি দিতে কার্পণ্য করবে?

আমরা চাই, বাংলাদেশ রাষ্ট্রটি ধর্ম-বর্ণ-গোত্রনির্বিশেষে সবার প্রতি সমান আচরণ করবে। সব জনগোষ্ঠীর রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অধিকার সমুন্নত রাখবে।

 যেসব অতি-উৎসাহী পুলিশ সদস্য আদিবাসী দিবসের কর্মসূচি পালনে বাধা দিয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন। সেই সঙ্গে আদিবাসী সম্প্রদায়কে এই অভয় দিতে হবে যে, ভবিষ্যতে তারা নির্বিঘ্নে ও নির্ভয়ে সব কর্মসূচি পালন করতে পারবে। যেকোনো গণতান্ত্রিক দেশের গণতান্ত্রিক সরকারের সেটাই অবশ্যকর্তব্য বলে মনে করি।

Friday, August 10, 2012

‘Debate over ‘indigenous, ethnic minorities’ should go’

The New Nation, Dhaka
August 10, 2012 | 07:54 PM (BD Time)
Source: http://thenewnationbd.com/newsdetails.aspx?newsid=48117
UNB, Dhaka


Speakers at a seminar here on Thursday called for a solution to the ongoing debate over 'indigenous' and 'ethnic minorities' through discussions to ensure the rights, ethnicity and cultural diversity of indigenous people.

They said there are a number of contradictions between the UN Declaration on the Rights of Indigenous Peoples adopted by the General Assembly in 2007 and the Constitution. If the government recognises the ethic minorities as indigenous people, it will be harmful to the country, they warned.

Bhorer Kagoj, a vernacular daily, organised the seminar, titled 'Tribal or Ethic Minorities and Indigenous Thinking: Bangladesh Perspective' at its office in the city. Chaired by Bhorer Kagoj editor Shyamol Dutta, the seminar was addressed, among others, by Major Gen (retd) Abdur Rashed, Nagarik Oikya convener Mahmudur Rahman Manna, chairman of Kalyan Party Syed Mohammad Ibrahim Bir Pratik, cultural personality Pijush Bandyopadhyay, advocate Montasir Mamun and Prof Mamtazuddin Patwari.

 Abdur Rashed said if Bangladesh ratifies the UN Convention 2007 and recognises the ethic minorities as indigenous people it will be bound to ensure their rights as per the UN convention.

"And if the state cannot ensure the rights of indigenous people, they will seek help from the international community. Then a UN mission will be here triggering a new crisis," he said. Rashed said the government has to consider how much the country will be internationally affected after the reorganisation of them as indigenous people. Syed Ibrahim said most of the global aboriginal people live in three counties - the United States, Australia and New Zealand-but they have not yet signed the UN Convention and recognised them as indigenous people.

"If the government officially declares them indigenous people, it will bring a danger for the state," he said. Stressing the importance of taking initiatives to protect their unique culture, language and ethnicity, Prof Mamtazuddin said the word 'indigenous' has created a divide and distance among the ethnic minorities.

Thursday, August 09, 2012

Police ‘arrests’ public jeeps in Panchari and Mohalchari to foil world’s indigenous day programme

 
Santoshita Chakma Bakul (Jumma refugee leader, with spectacle and half shirt), Mozammel Haque Tara (Bangladesh Workers Party's central committee member), Sudhasindhu Khisa (JSS co-chair), Khelu Aung (PCP central committee general secretary), Ananta Bihari Khisa (prominent social worker and educationist), Nirapad Talukdar (vice chairman, Khagarachari Sadar upazila), Sudhakar Tripura (JSS Khagarachari district committee president) and Advocate Saktiman Chakma (JSS central committee member with red stripped shirt).


Police ‘arrested’ all public jeeps in Panchari Upazila of Khagarachari Hill District today. This information sounds laughing, as men and women are arrested by Police, but it practically happened today in Panchari and Mohalchari Upazilas.

The CHT Voice started receiving information since 6.45 am today on the Police excesses in Khagarachari Hill District today. Panchari and Mohalchari Police Stations seized all the public jeeps and a few buses early in the morning today and taken to Panchari Police Station  and Mohalchari  Police Station compounds; the reason is nothing but to foil the public gathering organised by JSS at Khagarachari town on the International Day of the World’s Indigenous Peoples.


Ragib Ahsan Munna, ex-VP, Rajshahi University Central Student Union (RUCSU) and Central Committee Member, Bangladesh Workers Party (centre, with green panjabi and white payjama) is seen at backstage at the venue, Surjyashikha Club, Mohajanpara, Khagarachari, engaged in exchange of views with JSS leaders on the CHT issues. 

At around 7.00am the leaders of JSS, Panchari Thana chapter went to police station and wanted to know the reason of seizure of jeeps. The reply was very simple that all the jeeps had no necessary papers to ply. Then the JSS leaders tried to make the police authority understand that there will be unnecessary law and order problem as the public started coming to roadside to attend the programme at Khagarachari. The police did not pay any heed to the opinion. Then the JSS instantly declared road blockade on the Khagarachari-Panchari road. It worked and after 45 minutes jeeps had been released.

The Mohalchari Thana police also gave stern order to the transport association of Mohalchari last night so that they abstain from carrying public for the JSS Khagarachari programme.  7 public jeeps  had been seized early in the morning. However, sensing the police move a few jeep drivers had been able flee from the seizure. The Mohalchari Police, later argued  to the JSS, the jeeps had been seized under a mobile court drive failing to produce necessary papers.  The Mohalchari JSS instantly called a morning to evening road blockade programme on the Rangamati-Mohalchari-Khagarachari road. However, it was withdrawn at around 1.00 PM considering the serious difficulties of the public. 

Similarly, to foil this programme the police of Ramgarh Thana stopped transports at Ramgarh and the police of Matiranga Thana stopped jeeps on the Matiranga-Khagarachari road which were going to Balyachari to fetch the public for the public programme scheduled at Khagarachari.
However, they released the jeeps when the JSS' student activists told that the police move would invite law and order problems.

Headquarter police station of Khagarachari Hill District also stopped a fleet  of  JSS  vehicles  at Rajyamunipara, southern part of Khagarachari Bazar, vehicles coming from Betchari, Bhuachari and Kamolchari. They meeting goers with these vehicles had also been stopped by police personnel  so that they could not go to the meeting. 

It has been gathered from different police stations in Khagarachari Hill District that they started receiving instructions from the office of the Superintendent of Police, Khagarachari so that opposition is offered by seizuring of public vehicles. Dighinala police station also received this instruction last evening and tried to convince his authority that there would be peaceful programme and the police action would invite unrest in the area. He did not stop public vehicles. The Bengali Muslim owners did not give their transports to carry JSS’ supporters to go to JSS’ Dighinala programme.

The JSS led by Sudhasindhu Khisa, Rupayan Dewan and Tatindra Lal Chakma (known as Maj. Pele) organised four public programmes today at Khagarachari (for Chengi valley), Dighinala sadar (for Maini valley), Matiranga sadar (for Feni valley) and Marishya or Baghaichari Upazila sadar (for Kassalong valley). In Rangamati town there has been a programme to mark this day under the banner of Bangladesh Adivasi Forum.

Tuesday, August 07, 2012

Ruling MPs for state observance of Int’l Day for Indigenous Peoples



Staff Correspondent

A cabinet member, ruling party lawmakers and key partners of the ruling alliance urged the government on Monday to observe International Day for Indigenous Peoples on August 9.
Speakers at a discussion organised by the Parliamentary Caucus on Indigenous Peoples at the Central Public Library also demanded that the government formulate a law to protect indigenous people’s rights.
Industries minister Dilip Barua was the chief guest, whilst state minister for cultural affairs Promod Mankin inaugurated the meeting.
Jatiya Samajtantrik Dal president Hasnaul Haq Inu, ruling party lawmakers AKM Mozammel, Shawkat Momen Shahjahan, Sarah Begum Kabori, Ziaur Rahman and Rubi Rahman spoke at the programme.  
Workers Party of Bangladesh president Rashed Khan Menon, convenor of the Parliamentary Caucus on Indigenous Peoples, presided over the programme.
Speakers condemned the circular issued by the Local Government and Rural Development ministry on March 11 which directed all district administrations not to co-operate in the observance of International Day for Indigenous Peoples and disseminated a message along the lines of there being no ‘Indigenous peoples’ in the country.
Promod Mankin said that the state should observe the day, the way other international days are observed in Bangladesh.
‘I am a cabinet member but I can not give my identity as a member of an indigenous community as the constitution does not allow me’ he said.
Promod Mankin urged the government to count the numbers of indigenous people and their ethnic groups properly.
Rashed Khan Menon said that it was unfortunate that a ministry had issued a circular not to co-operate in the observance of the day and that there were apparently no ‘Indigenous Peoples’ in the country.
He demanded the government withdraw the circular as soon as possible.
Hasanul Haq Inu said that the recent debate on indigenous day was nothing but ‘foolish’.
He also demanded the proper constitutional recognition for the indigenous people of the country.
 ‘Clause 23A of the constitution of Bangladesh which reads “The culture of tribes, minor races, ethnic sects and communities” should be replaced with “indigenous” as soon as possible’ Inu said.
He also demanded the government to formulate a law to protect indigenous people’s rights, titled ‘Bangladesh Indigenous People’s Rights Act’.
AKM Mozammel asked what the problem was if people used ‘indigenous’ instead of ‘tribes, minor races, ethnic sects and communities’ to identify themselves.
Dilip Barua said the current government was non-communal and friendly towards indigenous people. He said the government was implementing the Chittagong Hill Tracts Treaty signed in 1997.
The Parliamentary Caucus on Indigenous Peoples organised the discussion in association with International Labor Organisation, Oxfam and Research and Development Collective.

Monday, August 06, 2012

BGB attempts to break the JSS office and conducts search operation at Marishya

The JSS Baghaichari office became target of BGB (Border Guard Bangladesh) Marishya  Zone yesterday of forced search operation. A group of BGB personnel rushed to JSS Baghaichari Thana office yesterday and tried to open the office which was under lock and key. They tried to force get the key from the office bearers of the JSS thana committee but invain. The office bearers did not agree to give the key and asked the BGB personnel to break the door and enter the office if they were at all determined.

The BGB personnel, at the same time conducted a search operation at Babupara of proper Baghaichari Upazila headquarter. Sudhasindhu Khisa, JSS Co-Chair, PCJSS and also a CHT Regional Council member raised the issue before Jatindra Lal Triupura M.P., Brigade Commander of Khagarachari brigade and the BGB Sector Commander, Khagarachari (Marishya BGB Zone falls under him) and wanted to know whether the GoB has changed the policy. All the three denied that the idea was not true. Afterwards, Khisa was told by both the commanders that the BGB personnel were in search of 2 armed persons at Babupara. SS Khisa asked them to abstain from such operations prior to the 9th August.

Baghaichari Upazila Chairman Sudarshan Chakma also protested the search operation. He is the Vice President of JSS Rangamati District Committee, a most wanted person to the JSS led by Santu Larma.

The BGB raid created panic among the local people and the JSS activists. Many people are in belief that this was done to terrorise the locality so that the ensuing indigenous peoples day cannot be observed in peace. However, the JSS leaders and activists of Baghaichari are determined to observe the 9th August  despite GoB circular which goes against the UN indigenous peoples day.

'Foreign journalists barred from CHT'


Courtesy: bdnews24.com: http://bdnews24.com/details.php?id=229703&cid=2

Sun, Aug 5th, 2012 4:35 pm BdST

Dhaka, Aug 5 (bdnews24.com)—The government has tightened restrictions on foreign nationals including journalists travelling to the Chittagong Hill Tracts (CHT) amid allegations that it is flouting national and international laws.

Chittagong Hill Tracts Commission (CHTC), a non-government organisation, at a press conference on Sunday alleged in the current year, the government expelled three foreign nationals including a Swedish journalist.

Sultana Kamal, Co-Chairman of CHTC, said Jumma-Net Co-President Thomas Christian Eskildsen, also an advisor to the CHTC, was stopped from entering Bangladesh as he reached Shahjalal International Airport on July 23 and was deported.

Eskildsen, who visited hill districts about 20 times in the last 25 years, was trying to enter Bangladesh after he was detained from Bandarban on January 3, 2012. He was deported after interrogation by intelligence agencies, according to a letter Eskildsen sent to Prime Minister Sheikh Hasina requesting an explanation for the incidents.

"These incidents are testimonies to the administration's unexpected intervention on the free movement at Chittagong Hill Tracts," said Kamal, who was an advisor to a caretaker government.

"This step of the government is frustrating," she added.

According to her, letters were sent to managers of hotels, cottages and resorts in the Chitaggong Hill Tracts, ordering them not to accept any booking for foreign nationals unless there was an order from the district administration.

The CHTC press conference came three days after Bangladesh Adivasi Forum alleged the government slapped an official embargo on the celebrations of this year's International Day of the World's Indigenous People which is on Aug 9.

According to the Forum, a letter titled "Regarding observance of the World's Indigenous day" was sent to the District Commissioners of the three Chittagong Hill Tracts districts on Mar 11 by the Ministry of Local Government and Rural Development ordering them to not observe the day.

The CHTC press conference called upon the government to withdraw such orders and fully implement the Chittagong Hill Tracts Accord signed in 1997 between the then Awami League government and Shanti Bahini guerrillas.

Sultana Kamal also alleged the government was saying there was no 'advasi' people in Bangladesh though the ruling Awami League in its election manifesto clearly used the word 'adviasi'.

Tripura: BSF Prevents Illegal Entry of 250 Tribals of B'desh



PTI, Agartala, 5 Aug 2012

At least 250 people of Chakma and Tripuri tribes from Chittagong Hill Tracts of Bangladesh are now waiting in other side of the barbed wire fencing at Shuknachhari in South Tripura district in a bid to take shelter in Indian territory, BSF sources said here today.

They made an attempt to enter India last night, but BSF did not allow.

Following intimation from BSF, Border Guard of Bangladesh (BGB) personnel arrived at the spot and were trying to convince them to return home, the sources said.

Over 70,000 people, mostly Buddhist Chakmas, took shelter in refugee camps in South Tripura district in 1986 following clashes with the plains people.



Chittgong Hill Tracts: Dhaka Disregards Indigenous Day

UNPO 

Chittagong Hill Tracts: Dhaka Disregards Indigenous Day
Source: http://www.unpo.org/article/14659

The government of Bangladesh has urged local authorities to ignore marking International Day of the World’s Indigenous People in a move leading many to suspect its real commitment to the CHT Peace Accords.

Below is an article published by The Daily Star:

The government has been asking Adivasis in the country not to observe the International Indigenous Day, raising questions about its will to implement the Chittagong Hill Tracts (CHT) Peace Accord.

A letter issued by the Local Government and Rural Development ministry on March 11 [2012] directed all district administrations not to cooperate in celebrations of the indigenous day and disseminated a message to the effect that there were no indigenous people in the country.

The world's indigenous communities and rights activists have been observing the day on August 9 every year since 1994 following a decision of the United Nations general assembly.

"Through the order, the government shows its attitude towards the indigenous communities," said Sanjeeb Drong, secretary general of Bangladesh Forum for Indigenous People.

The government cannot stop Adivasis from celebrating the day, he said, demanding that the day be observed at the state level.

Going against its electoral pledge, the present government in 2010 passed a law in which it termed the indigenous communities as "minor races" and "ethnic sects". The Adivasis protested against the move but could not change the government's position on the matter.

However, some efforts have been made recently toward implementing the peace accord signed in 1997. The CHT land commission law has been amended to resolve the land related disputes in the hilly region and arrangements have been made to handover 12 government institutions in three hill districts to the CHT Regional Council.

The previous Awami League-led government signed the accord with the Parbatya Chattagram Janasanghati Samity, a regional political party of indigenous people, ending 22-year long period of unrest in the region.

The government issued the letter on the basis of an intelligence report, the letter mentioned, saying the concept of the indigenous day clashed with government policy.

Earlier, the government issued letters forbidding the use of the term "indigenous". Besides, government high-ups have delivered speeches in the UN forum, claiming that there were no indigenous people in Bangladesh.